TURNER IT SOLUTION

সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ || সময়- ১:০০ am

Warning: include(usbd/config/connect2.php) [function.include]: failed to open stream: No such file or directory in /home/onn24/public_html/details.php on line 82

Warning: include(usbd/config/connect2.php) [function.include]: failed to open stream: No such file or directory in /home/onn24/public_html/details.php on line 82

Warning: include() [function.include]: Failed opening 'usbd/config/connect2.php' for inclusion (include_path='.:/usr/lib/php:/usr/local/lib/php') in /home/onn24/public_html/details.php on line 82

Warning: mysql_num_rows() expects parameter 1 to be resource, boolean given in /home/onn24/public_html/details.php on line 84

সত্য ঘটনা অবলম্বনে এস.এম. হাফিজুর রহমান এর লেখা ‘চোখে দেখা, কানে শোনা’

  • সত্য ঘটনা অবলম্বনে এস.এম. হাফিজুর রহমান এর লেখা ‘চোখে দেখা, কানে শোনা’

আত্মার বড় একটি অংশ দখল করে আছে সাংবাদিক হওয়ার জন্য। মনের লুকায়িত বাসনা প্রকাশ করলাম শ্রদ্বেয় বাংলাদেশের সর্ব কনিষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা ও মণিরামপুর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার মোঃ সিদ্দিকুর রহমানের কাছে। তিনি নিজেই আমাকে  যশোর থেকে প্রকাশিত একটি মাসিক পত্রিকার সম্পাদকের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। ঐ সম্পাদক মহোদয় তাঁর বন্ধু মানুষ। আমাকে পরিচয় করিয়ে দিলেন এবং বললেন তোমার পত্রিকায় ওকে সাংবাদিক বানিয়ে নিও। ভদ্রলোক বললেন আমার মাসিক পত্রিকা এখানে সাংবাদিকতা করে কি লাভ। আমার ইচ্ছার কথা শুনে বললেন ঠিক আছে কাগজপত্র জমা দেও।
এরপর কয়েক মাস চলে যায় কিন্তু ঐ কাগজ আর প্রকাশ হয়না। নিরাশ হলাম, হতাশা আমাকে ঘিরে ধরলো। সাংবাদিক হওয়ার প্রত্যাশা অন্ধকারে বিলীন হতে লাগলো।
দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলো। তারপরে প্রিয় জন্মভূমি যশোর থেকে ঢাকায় ভালো কিছু করবার উদ্দেশ্যে এই আগমন।
ঢাকায় থাকা অবস্থায় প্রিয় এক বড় ভাই আমাকে জানালেন তিনি একটি পত্রিকার লাইসেন্স নিচ্ছে। আমি তার খুব স্নেহের একজন সুতারাং সেই ফেলে আসা বাসনা বুঝি পুরণ হবে। তিনি আমাকে জানিয়ে দিলেন পত্রিকার খুব কাছাকাছি থেকে তোমাকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। আমি  তো আনন্দে আত্মহারা মেঘ না চাইতে বৃষ্টি, এ যেন এক অন্য পাওয়া।
খুব অল্প সময়ের মধ্যে পত্রিকাটির ডিএ নং পেয়ে গেলেন আমার সেই বড় ভাই। খুব আনন্দ চিত্তে কাজ করতে লাগলাম আমাদের সাপ্তাহিক সেই পত্রিকায়। অযোগ্যতাই ভরপুর আমি সাংবাদিকতার লাইনে। আমার মতো ক্ষুদ্র যোগ্যতা নিয়ে সাংবাদিকতার উচ্চ শিখরে আহরণ করা একেবারেই অসম্ভব। পত্রিকার সাথে অবিরাম কাজ করতে লাগলাম। অল্প সময়ে অবাস্তবের মতোই  হয়ে গেলাম আমাদের সাপ্তাহিক পত্রিকার বার্তা সম্পাদক। এত বড় দায়িত্ব এ যেন পাহাড় কাঁধে নেওয়া। এরপরেও ভীতু নই আমি। ভাবতে লাগলাম কিভাবে পত্রিকার গুনগত মান বাড়ানো যায়।
সাধারণত আমাদের পত্রিকার ছাপানোর মানটা একেবারে নিম্ন ছিল। কিছু লেখা পড়া যেত আবার কিছু লেখা পড়া যেত না। সর্বপ্রথমে কিভাবে আমাদের পত্রিকার ছাপার মান উন্নত করা যায় সে বিষয়ে ভাবতে লাগলাম। প্রথমে আমার জানা ছিলনা আমাদের পত্রিকা কোথায় ছাপা হয়। তারপর দায়িত্বের কারণে কাজের সব অগিগলি গুলো চিনতে হয়েছে। সম্পাদকের সাথে আলোচনার টেবিলে বসলাম, জানালাম আমার পরিকল্পনার কথা। পত্রিকার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলে আমার পরিকল্পনার সাথে একমত পোষন করলেন। সম্পাদক পত্রিকার ছাপার মান ভালো করার জন্য দায়িত্ব দিলেন।
এই প্রথম সৌভাগ্য আমার পত্রিকা নিজে বসে সেটিং করাচ্ছি। কিন্তু পত্রিকার গেটাপ আমার মনের মতো হচ্ছে না। ডিজাইনার রেডিমেট কাজ করতে চাই। আমার প্ল্যানের সাথে একদম বেমিল। প্রত্যেকটা কাজ যদি গচ্ছিত না হয় তা হলে সে কাজের পিছনে শত পরিশ্রম দিলেও তা অমূল্যহীন। ডিজাইনার গোজামিল করে কাজ দিতে চাই। সে আমাকে বোঝায় এইভাবে ছাড়া হয়না।
মনের ভিতর এক ধরনের অভিমান ও অতিমান নিয়ে কোনো রকম কাজ শেষ করলাম।
নিজে ভাবতে লাগলাম আমার চিন্তার সাথে সকলের চিন্তা এক হতে পারে না। তাই কিভাবে পত্রিকা সেটিং নিজেই করা যায় সেই ভাবনা গুলো জড়ো করলাম। প্রত্যেকটি কাজ খুব সহজ নয়। কিন্তু চেষ্টার কাছে কঠিন কাজ গুলো পরাজিত হয়। কল্পনা একটাই লোকে যা পারে আমাকেই তা পারতে হবে, আবার লোকে যা না পারে আমাকে তাও পারতে হবে। পৃথিবী যখন এগিয়ে, আমরা তখন পিছিয়ে তা হতে পারেনা। বোরাক গতিতে এগিয়ে যেতে হবে স্বপ্নের শিখরে। জয় করতে হবে পৃথিবী।
চেষ্টা শুরু হলো পত্রিকা সেটিং এর। সেটিং করতে গিয়ে নানান বিড়ম্বনার সাথে পরিচয়। তবুও হার মানবো না, লক্ষে পৌঁছাতে হবে। খুবই অল্প দিনে  সেটিং শিখতে সক্ষম হলাম। তারপর থেকে পত্রিকা আমার সেটিং এ প্রকাশ হতো।
পূর্বে যারা আমাদের পত্রিকা সেটিং করতেন সেই সব ডিজাইনারদের আমার সেটিং করা পত্রিকা পরবর্তীতে দেখিয়েছি। তারাতো রীতি মতো হতবাক।
প্রিয় পাঠক নিজের ঢোল নিজে পেটানোর জন্যই আমার এ লেখা না। বাস্তব সত্যকে তুলে ধরে আমার এ লেখা। শেষ অংশে শুধু অনুপ্রেরণার জন্যই লেখা। অপ্রতিরোধ্য ইচ্ছা আপনাকে নিয়ে যেতে পারে স্বপ্নের মোহনায়।
জীবনে চলার পথে আনেক বাধা আসবে, সেই বাধাকে অতিক্রম করে বাঘের মত এক দিন বাচ, আর পৃথিবীর বুকে দাগ কেটে যাও নাম লিখে যাও স্বনাক্ষরে।
আমরা সবাই স্বপ্ন দেখি জীবনে বড় হবো। কেউ হয়তো শুধু স্বপ্ন দেখি, কেউ হয়তো স্বপ্নটাকে ছোয়ার জন্য আরাম আয়েশ ত্যাগ করে রাতদিন খাটি। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমরা সফল হইনা। যখন ব্যর্থ হই তখন দেখা যায় আর পুনরায় পরিশ্রম করবার মত সময় নেই। ডুবে যেতে হয় হতাশায়। ব্যর্থতা আর হতাশা তখন আমাদের সব উদ্যম নষ্ট করে দেয়। না এখানেই সব  শেষ নয়। যেখান থেকে শেষ  সেখান থেকে শুরু করে  দেখুন। সবশেষে একটা কথা বলি তোমার যদি কিছু করবার ইচ্ছা থাকে তবে কোন কিছুই তোমাকে আটকাতে পারবেনা। তুমি পারবে, যদি তোমার ভিতর থাকে ইচ্ছার আগুন। 

ONN TV
payoneer
নিউজ আর্কাইভ
সর্বাধিক পঠিত
সখিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২ ব্যাপী ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান
ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

সাতক্ষীরা  প্রতিনিধি: সখিপুর ইউনিয়নের সখিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ২ দিনব্যাপী ক্রীড়া, কুইজ, রচনা প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বে-সরকারি প্রতিষ্ঠা

জেলা পরিষদের সদস্য প্রাথী শাপলার গনসংযোগ
জেলা পরিষদের সদস্য প্রাথী শাপলার গনসংযোগ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও ইউপি চেয়ারম্যানদের সাথে গনসংযোগ করেছেন জেলা পরিষদের সদস্য প্রার্থী সোনিয়া পারভীন শাপলা। সোমবার

দেবহাটা রিপোর্টাস ক্লাবের নবগত নির্বাহী অফিসারের সাথে ফুলের শুভেচ্ছা ও মতবিনিময়
 শুভেচ্ছা ও মতবিনিময়

দেবহাটা প্রতিনিধি: দেবহাটা উপজেলা নবগত নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে ফুলের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেবহাটা রিপোর্টাস ক্লাবের নের্তৃবৃন্দরা। সোমবার দুপুরে নির

দেবহাটায় ছাত্রলীগের ৪দলীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট
৪দলীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট

মীর খায়রুল আলম, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: দেবহাটায় ছাত্রলীগের উদ্যেগে ৪দলীয় ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকালে উপজেলার গোপাখালি মাঠে দে

দেবহাটায় ইএনও’র বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন
দেবহাটায় ইএনও’র বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন

মীর খায়রুল আলম:: দেবহাটা উপজেলাকে মডেল করতে ছুটির দিনে উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাফিজ আল-আসাদ। শুক্রবা

শিরোনাম